শ্রীমঙ্গলে টানা সাড়ে ৬ ঘন্টার বিদ্যুৎ বিড়ম্বনা!

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ৪:৩০ অপরাহ্ণ | আপডেট: ২ মাস আগে

শ্রীমঙ্গলে টানা সাড়ে ছয় ঘন্টার বিদ্যুৎ বিড়ম্বনা জনজীবন অচল হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে সঞ্চালন লাইনের রক্ষানাবেক্ষন কাজের জন্য শুক্রবার সকাল ৮ টা থেকে উপজেলাজুড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে রাখে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। সমিতির একটি সূত্র জানায়,সকাল সাড়ে দশটা পর্যন্ত কাজের পরিধি বিবেচনায় নিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হলেও প্রায় সাড়ে ৬ ঘন্টা পর বেলা সোয়া দুইটায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করা হয়।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (কারিগরি) খালেদুল ইসলাম বলেন,সকালে সঞ্চালন গ্রীডে ত্রুটি দেখা দিলে তা মেরামতের প্রয়োজন পড়ে, একই সাথে শহরের পশ্চিম ভাড়াউড়া এলাকায় বিদ্যুৎ এর একটি খুঁটিতে আগুন লাগার কথা জানান। এসব কাজের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়।

এই দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকায় জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে আসে। অতীতে সঞ্চালন লাইনের রক্ষানাবেক্ষন কাজ শুরু করতে আগের দিন শহরে মাইকিং করা হলেও শুক্রবারের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকার বিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি থেকে আগাম কোন ঘোষণা দেয়া হয়নি। যে কারনে সাধারন গ্রাহকরা চরম বিড়ম্বনার মধ্যে পড়েন। বিষেশ করে জুমার দিন হওয়ায় অজু গোসলের পানির অভাবে পড়েন মুসল্লীরা। জুমার খুদবার আগে অনেক মসজিদের মাইকে মসজিদে অজুর পানি না থাকার কথা জানিয়ে বাড়ি থেকে অজু করে আসতে মুসল্লীদের অনুরোধ জানাতে দেখা গেছে। অনেকে ঘোষণা না জেনে মসজিদে এসে অজু করতে পানি না পেয়ে বিপাকে পড়েন।

শহরের হাউজিং এস্টেট এলাকার এক আমেরিকা প্রবাসীর দুপুরে বাসায় মেহমান নিমন্ত্রণের আয়োজন করে বিপাকে পড়েন। বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় পানির অভাবে অনেক মেহমান চলে যান, পরে মিনারেল ওয়াটার কিনে বাথরুমের কাজ সারতে হয়েছে বলে তিনি জানান। উত্তর ভাড়াউড়া গ্রামের রুহেল আহমেদ বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ এর এমন খাম খেয়ালিতে আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি। আগের দিন ঘোষনা দিয়ে এই বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখলে আমাদের এই দুর্ভোগে পড়তে হত না বলে তিনি জানান।

অনেক গ্রাহক অভিযোগ করেছেন, এসময় তারা তথ্য জানতে অভিযোগ কেন্দ্রে খোঁজ নিতে ফোন করা হলেও অনেকে জবাব পাননি।
শ্রীমঙ্গল থানা জামে মসজিদ থেকে জুমার নামাজ পড়ে বেড়িয়ে এক মুসল্লী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ আপনি লক্ষ্য করে দেখবেন শুক্রবার এলেই পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির যত রক্ষানাবেক্ষন কাজের প্রয়োজন হয়, এটা সমিতির দুরভিসন্ধিমূলক কাজ ‘।

এনিয়ে যোগাযোগ করা হলে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার জিয়াউর রহমান বলেন, সকালে বিদ্যুৎ এর একটি গুরুত্বপূর্ণ খুঁটিতে হঠাৎ আগুন লেগে যায়। খুটিটির আগুন নিয়ন্ত্রণ ও মেরামত করতে এসময়টিতে সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখার প্রয়োজন হয় বলে তিনি জানান। তিনি বলেন জুমা বারকে কেন্দ্র করে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখার বিষয়টি একটি অমলুক ধারনা।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ