নিহতরা হলেন- রুবিয়া বেগম (৩০) এবং তার মেয়ে মাহা (৯)। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন রুবিয়ার ছেলে তাহসান (৭)।

এ ঘটনায় রুবিয়ার সৎ ছেলে ঘাতক আবাদ হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ।

শাহপরান থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আনিসুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে আবাদ হোসেন দা দিয়ে তার সৎ মা ও বোন ও ভাইকে কোপাতে থাকে। ঘটনাস্থলেই মা ও বোন মারা যান। আর আহত অবস্থায় তার সৎ ভাই তাহসানকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থাও গুরুতর।

 

ওসি বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে আছি। কি কারণে মা-বোনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি।’

তিনি বলেন, অভিযুক্তকে আটক করা হয়েছে। আর মরদেহগুলো উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ওসমানী হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে সিলেটে মহানগর পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) সুহেল রেজা, শাহপরান থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার ময়নুল আফসারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

মহানগর পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) সুহেল রেজা জানান- প্রাথমিকভাবে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী সৎ মায়ের সাথে ঘাতক আবাদের ভালো সম্পর্ক না থাকায় মনের ক্ষোভ থেকেই এই হত্যাকান্ডটি ঘটেছে। তবে জিজ্ঞাসাবাদের পর আসল রহস্য জানা যাবে।