একজন উপজেলা চেয়ারম্যানের অনন্য দৃষ্টান্ত

বিশেষ প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১১:৪১ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ২ সপ্তাহ আগে

বাড়িতে ধুমধাম বিয়ের আয়োজন। বিয়ের গেইট,প্যান্ডেল থেকে শুরু করে আছে কয়েক শত মানুষের ভূরিভোজের আয়োজন। দেখে বুঝার উপায় নেই যাদের জন্য এরকম ধুমধাম আয়োজন সেই বর কনে কেহই বাড়ির নিকট আত্নীয় নয়। পিতৃহীন এরকম বর কনের ধুমধাম বিয়ের আয়োজন করে নজির সৃষ্টি করলেন একজন উপজেলা চেয়ারম্যান।

তিনি হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ। পেশায় একজন আইনজীবি হলেও মূলত তিনি একজন রাজনীতিবীদ।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতির পথচলা শুরু করে বর্তমানে তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি। ৩৫ বছরের বর্নাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার আর একাধারে ১৮ বছরের জনপ্রতিনিধি হয়ে দুখী মানুষের ভরসার আশ্রয়স্থল হয়ে উঠছেন তিনি ।

জনপ্রতিনিধি হিসেবে উপজেলার উন্নয়ন কর্মকান্ডের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে বিভিন্ন সৃজনশীল কাজ করে মানুষের মন জয় করে চলেছেন।এমনি এক অনন্য আয়োজন ছিল পিতৃহারা দুটি অসহায় পরিবারের বর কনের বিয়ের অনুষ্টান।

বর উপজেলার করাব গ্রামের মৃত আফরোজ মিয়ার ছেলে মনির মিয়া (২৫) আর কনে পূর্ব বুল্লা গ্রামের মৃত অনু মিয়ার মেয়ে জোনাকি (১৯)।

বৃহ্স্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) উপজেলা চেয়ারম্যান তার নিজ বাড়ি হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার করাব গ্রামে আয়োজন করে তাদের বিয়ের অনুষ্টান। শুধুমাত্র বিয়ের অনুষ্টানই নয় নব দম্পতির জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ তহবিল থেকে তিন লক্ষ টাকার বরাদ্দে তৈরী করে দেন দৃষ্টি নন্দন বাড়ি।

এছাড়া ব্যক্তিগত তহবিল হতে বরের আর্থিক স্বচ্ছলতার জন্য নতুন ইজিবাইক সহ ব্যবহার্য যাবতীয় আসবাবপত্র বিয়েতে উপহার হিসেবে দেন তিনি।

জানতে চাইলে লাখাই উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ জানান সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে দুটি অসহায় পরিবারেরর বর কনের বিয়ের আয়োজন করেন তিনি।

কনে জোনাকি দীর্ঘদিন তার বাসার গৃহকর্মী হিসেবে পরিবারের একজন হয়ে উঠেছিল পাশাপাশি বর তার পার্শ্ববর্তী বাড়ির বাসিন্দা। বর কনের সংসার জীবনে সাবলম্ভী হতে ব্যক্তি উদ্যোগে নতুন ইজিবাইক উপহার দেন বলে জানান তিনি।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ