সিলেটের ৫ হোটেল লন্ডন প্রবাসীদের জন্য প্রস্তুত

নিজস্ব প্রতিবেদক ;
  • প্রকাশিত: ২ জানুয়ারি ২০২১, ৮:১৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ বছর আগে

সিলেটকে বলা হয় দেশের দ্বিতীয় লন্ডন। বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের মানুষের একটি বড় অংশ যুক্তরাজ্যে বসবাস করার কারণেই হয়ত সিলেটকেই দেশের ‘দ্বিতীয় লন্ডন’ হিসেবে স্বীকৃতি দেন মানুষ। আর তাইতো যুক্তরাজ্যে করোনা মহামারির নতুন ‘স্ট্রেইন’ ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে দেশে ফেরা শুরু করেছেন প্রবাসীরা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যুক্তরাজ্যের সাথে বিমান যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিলেও বাংলাদেশের সাথে এখনও যোগাযোগ অব্যাহত থাকায় মানুষ দেশে ফেরা শুরু করেছেন।

এতে নতুন এ ‘স্ট্রেইন’ ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে বাংলাদেশে। তাইত যুক্তরাজ্য ফেরতদের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে সিলেটে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের জন্য দু’টি উন্নতমানের হোটেল চূড়ান্ত করা হয়েছে। এছাড়াও মোট ৫টি হোটেল চূড়ান্ত করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধিন আছে। বাকিগুলোর সাথে চলছে আলোচনা। দু’একদিনের মধ্যে লক্ষ্য অনুযায়ী হোটেল চূড়ান্ত করা হবে। এসব হোটেলে নিজ খরচে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের। আর কোয়ারেন্টাইনে থাকাদের সার্বিক সহযোগিতা করবে জেলা প্রশাসন। বিষয়টি জানিয়েছেন সিলেটের জেলা প্রশাসন এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, যুক্তরাজ্যের লন্ডন থেকে প্রতি সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট সিলেট আসে। প্রতি সোম ও বৃহস্পতিবার ওসমানী বিমানবন্দরে আসে বিমানের এসব ফ্লাইট। সিলেটে গত একমাসে যুক্তরাজ্য থেকে প্রায় দেড় হাজার যাত্রী এসেছেন। এতে করে সিলেটে করোনার নতুন স্ট্রেইন ছড়িয়ে পড়ার সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের নিজ খরচে বাধ্যতামূলকভাবে কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম জানান, যুক্তরাজ্য ফেরতদের অবশ্যই সরকার ঘোষিত প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন মানতে হবে। এ লক্ষ্যে আমরা ইতোমধ্যে সিলেটের হোটেল স্টার প্যাসিফিক ও হোটেল হলি গেট চূড়ান্ত করেছি। এছাড়াও বাকিগুলোর সাথে আলোচনা চলছে। সাথে ৭ শত মানুষকে যাতে কোয়ারেন্টিনে রাখা যায় সে ব্যবস্থা করা হবে। যারা যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে আসবেন তাঁরা এসব হোটেলে নিজ খরচে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

এর আগে গত ২৯ ডিসেম্বর যুক্তরাজ্য ফেরতদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার বিষয়ে সিলেটের বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে একটি সভা হয়। সভায় সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন বিআরডিটিআই ক্যাম্প এবং যাত্রীদের আর্থিক অবস্থা অনুযায়ী বিভিন্ন হোটেলে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে রাখার সিদ্ধান্ত হয়। যারা কোয়ারেন্টাইনের খরচ দিতে পারবেন না তারা থাকবেন সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে থাকা সিলেটের শাহপরাণ এলাকার বিআরডিটিআই ক্যাম্পে। যারা টাকা দিয়ে মোটামুটি মানের হোটেলে থাকতে চাইবেন তাদের জন্য সে রকম ব্যবস্থা করা হবে এবং যারা ভালো হোটেলে থাকতে চাইবেন তাদের জন্য ভালো হোটেলের ব্যবস্থা করা হবে।

 

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ