গোয়াইনঘাটে দেখা দিতে পারে কর্ম ও খাদ্য সংকট!

দূর্গেশ সরকার বাপ্পী,গোয়াইনঘাট;
  • প্রকাশিত: ৩ নভেম্বর ২০২০, ৮:৫৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৫ মাস আগে

একদিকে মহামারী করোনা অন্যদিকে বারবার বন্যায় গোয়াইনঘাট উপজেলায় দেখা দিতে পারে কর্ম ও খাদ্য সংকটের পদধ্বনি। গোয়াইনঘাট উপজেলায় রূপায়িত ও বোনা আমন ফসল বন্যার পানিতে নষ্ট হওয়া কারণে কৃষকদের মনে দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকটের পদধ্বনি সম্ভাবনা। বন্যার পানি কমে গেলেও রূপায়িত ও বোনা ফসল বেশিরভাগ নষ্ট হয়ে গেছে।

গোয়াইনঘাট বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় সবুজের মাট আজ মরুভূমি, দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষক। অনেক কৃষকের সাথে আলাপ করে জানাযায় রূপায়িত ও বোনা আমন ফসল নষ্ট হওয়ার কারণে খাদ্য সঙ্কটে পড়তে পারে গোয়াইনঘাটবাসী।কর্মহারা শ্রমিক ও কৃষকের মুখের দিকে তাকালেই ভেসে উঠে বীভৎস ও অসহায়ত্বের করোন চিত্র।

গোয়াইনঘাট উপজেলায় বর্তমানে কর্মবিহীন হয়ে পড়েছে দিনমজুর শ্রমিকদের চলছে মানবতার জীবন যাপন । সাধারণ নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষ গুলা লোকলজ্জার ভয়ে মুখ খুলে কিছু বলছে না। কর্মহীন শ্রমিক ও ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের চিহ্নিত করে সরকারের পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সমাজের বিত্তবানদের দায়িত্ব দিন মজুর শ্রমিক ও কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর, অনেকেই মনে করেন দিনমজুর শ্রমিক ও কৃষকের ভাগ্য উন্নয়ন করতে হবে। বর্তমান গোয়াইনঘাট উপজেলায় চর্তুথমুর্খী সংকটের প্রেক্ষাপটে কর্মহীন মানুষের কর্মসংস্থান দিতে সরকার ও উপজেলা প্রশাসনকে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণে দাবী ও অনুরোধ জানান এলাকাবাসী।

গোয়াইনঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: নাজমুস সাকিব বলেন আমি ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সরজমিনে গিয়ে পরিদর্শন করেছি বারবার বন্যার কারণে ফসলের ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন কৃষক, আমি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ব্যাপারে সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি কৃষি ভর্তুকি ও প্রমোদনা জন্য এর পাশাপাশি বিকল্প চাষাবাদ করতে কৃষকদেরকে সরকারে পক্ষ থেকে উসাহিত্য করা হচ্ছে ।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুলতান আলী তিনি বলেন উপজেলায় প্রায় ১১০০ হেক্টর জমির বোনা ও রোপা আমন ধান সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েছে। তবে যে সকল ধান নষ্ট হয়নি সেখানে ভাল ফলন হবে বলে মনে হচ্ছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে ২৫১০ জন কৃষককে সরকার পূনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় সরিষা, গম, সূর্যমুখী, চিনাবাদাম, মসুর খেসারি, টমেটো, মরিচের বীজ ও সার সহায়তা দিবে।

এছাড়াও সরকার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষককে প্রনোদনা দিচ্ছে। উপজেলা পরিষদের সহায়তায় সরিষা ও পেঁয়াজ বীজ বিতরন করা হয়েছে। ব্যাপকভাবে সবজি আবাদ শুরু হয়েছে। কৃষি বান্ধব সরকার নানা উদ্যোগ গ্রহন করেছে ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কৃষকের পাশে আছে। আশা করা যায় আমরা দ্রুত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারব।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ