শ্রীমঙ্গলে মন্ত্রনালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে জমি লীজ প্রদান

এস কে দাশ সুমন, শ্রীমঙ্গল;
  • প্রকাশিত: ২ অক্টোবর ২০২০, ৭:১০ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৬ মাস আগে

ভূমি মন্ত্রনালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে শর্তভঙ্গকারীর অনুকূলে ভিপি একসনা বন্দোবস্তীয় ভূমি লীজ প্রদান করা হয়েছে।

সরেজমিনে জানা যায় ইউ.কে প্রবাসী এক প্রভাবশালী কর্তৃক ডিসি খতিয়ানের জমি একসনা লিজ নিয়ে শ্রেণী পরিবর্তন ও লিজের শর্তভঙ্গ করে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেখানে থাকা শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব ও স্থানীয় ব্যবসায়ীদের দখলীয় ১৩ টি দোকান চলমান থাকা সত্ত্বেও দখলহীন অন্যের নামে লীজ দেয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এতে স্থানীয় ভূমি অফিসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যোগসাজস রয়েছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন।

বিষয়টি ভূমি মন্ত্রনালয়ের নজরে এলে মন্ত্রনালয় এক চিঠিতে শর্তভঙ্গকরীর অস্থায়ী লীজ বাতিল করে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা দায়েরে জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিলেও অদ্যাবধি তা কার্যকর হয়নি। উপরন্ত লীজ শর্তভঙ্গকরীর অনুকূলে পুনরায় লীজ প্রদানের অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, ২০১১ সাল থেকে শহরের ব্যস্ততম সাগরদীঘি রোডে অবস্থিত ভিপি মোকদ্দমা নং ৮৬/৬৮(শ্রী) এর ১৬শতক জমিতে শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব ও মেসার্স রহমান এন্টারপ্রাইজ এর সত্তাধিকারী মাহবুবুর রহমান সহ জনৈক আবুবকর সিদ্দীকি মোহন এর ভোগদখলীয় ১৩টি দোকান রয়েছে। শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবে সরকারী /বেসরকারী অনুষ্ঠানাদি সহ সামাজিক কর্মকান্ড পরিচালিত হয়ে আসছে। এরই মধ্যে এই প্রেসক্লাবের অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারী অর্থ বরাদ্দও করা হয়।

উক্ত ভূমির বর্তমান দখলদারগন বৈধভাবে ভোগ দখলের উদ্দেশ্যে বন্দোবস্ত পাওয়ার জন্য জেলা প্রশাসক বরাবরে কয়েক দফা আবেদন করেন। উক্ত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শ্রীমঙ্গল ভূমি অফিস কর্তৃক শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব, মাহবুবুর রহমান ও আবুবক্কর সিদ্দীকি মোহন এর ভোগদখলীয় ১৩টি দোকান রয়েছে মর্মে জেলা প্রশাসক বরাবর একাধিক প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

জানা যায়, ২০০৫ সালে লন্ডন প্রবাসী আব্দুল হান্নান শহরের সাগরদীঘি রোডের ভিপি মোকদ্দমা নং ৮৬/৬৮(শ্রী) এর রুপশপুর মৌজার এস.এ ৫৬৬ নং খতিয়ানের ১২০৪, আর.এস ৪৬৯৭ দাগে ৩৭ শতক ভূমি ও সুনগইর মৌজার ১৪৬ নং খতিয়ানের এস.এ ২৮৫ দাগে ১৪৭ শতক ভূমি একসনা লীজ বন্দোবস্ত নেন। পরবর্তিতে আব্দুল হান্নান উক্ত জমি ৯৯ বছরের লীজ বলে প্রতারনার মাধ্যমে অবৈধভাবে বিক্রি করতে থাকেন। লীজ শর্তভঙ্গ করায় ২০১০ সালের ২৮ জুন জেলা প্রশাসক আব্দুল হান্নানের শুধু রুপশপুর মৌজার ৩৭ শতক ভূমির লীজ বাতিল করেন। কিন্তু ২০১১ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর আং হান্নান কৌশলে উক্ত ভুমি নিজের কব্জায় রাখার জন্য তার আপন ভাগ্নে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের আব্দুল হালিমের নাম ও শ্রীমঙ্গল ভিরাইমপুর ঠিকানা ব্যবহার করে পুনরায় লীজ নেন। কিন্তু পূর্বের ন্যায় শর্তভঙ্গ করে অর্থের বিনিময়ে বিভিন্ন জনের কাছে উক্ত ভুমি সাব লীজ প্রদান ও ভুমি নিয়ে ফৌজদারী গঠনা সংঘটিত হওয়ায় ২০১৯ সালের ১২ মার্চ ভুমি মন্ত্রণালয় এক পত্রে আব্দুল হালিম নামীয় লীজ পুনরায় বাতিল ও তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা দায়েরের জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. কামরুল হাসান ফেরদৌস স্বাক্ষরিত পত্রে একই সাথে উক্ত ভুমি অন্য উপযুক্ত ব্যক্তি/ সংস্থার অনূকুলে লীজ প্রদানেরও নির্দেশ দেন।
কিন্তু ভূমি মন্ত্রণালয়ের এই নির্দেশ উপক্ষো করে পূর্বেরন্যয় ইউ.কে প্রবাসী আব্দুল হান্নান কৌশলে তার ৪র্থ স্ত্রী জেনি আক্তারের নাম ব্যবহার করে আবারো ১৪২৬ বাংলা পর্যন্ত একসনা লীজ গ্রহনে সমর্থ হয়। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এই একই ব্যাক্তিকে বারবার লীজ প্রদান প্রক্রিয়ায় তৎকালিন সহকারী কমিশনার (ভূমি) শ্রীমঙ্গল জনাব, মাহমুদুর রহমান মামুন এর অনৈতিক সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

যোগাযোগ করা হলে আব্দুল হান্নানের ছেলে আবুবক্কর সিদ্দীকি মোহন জানান, সরকারি জমি কৌশলে লীজ নিয়ে অবৈধভাবে বিক্রয় করা তার পিতার নেশায় পরিনত হয়েছে। এলাকার অনেক গরীব/অসহায় লোক না বুঝে তার এই প্রতারণার শিকার হয়ে আজ পথে বসেছে। এছাড়াও পরিবার স্ত্রী সন্তান রেখে একাধিক বিয়ে করাও তার পিতার অন্যতম নেশা, তাই পারিবারিক ভাবে সে আজ সম্পুর্ন বিচ্ছিন্ন।

জানতে চাইলে মৌলভীবাজার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মল্লিকা দে জানান, শ্রীমঙ্গল সহকারী কমিশনার (ভূমি) কতৃক জেনী আক্তার নামীয় আবেদনকারীর স্বপক্ষে প্রতিবেদন দেওয়ায় আমরা তার অনুকুলে একসনা লীজ প্রদান ও ১৪২৬ বাংলা সন পর্যন্ত লীজমানি গ্রহন করি। ভূমি মন্তনালয়ের নির্দেশ অমান্য করে লীজ মানি গ্রহন বিষয়ে তিনি জানান, জেনী আক্তার যে আব্দুল হান্নানের ৪র্থ স্ত্রী ও হালিম তার ভাগ্নে সেটা আমাদের জানা ছিল না, তবে অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে। উক্ত ভুমি একসনা লিজের আওতাভুক্ত, তাই সুষ্ট তদন্তক্রমে ভূমির বর্তমান দখলীয় অবস্থার সঠিকতা যাচাইপূর্বক অন্য ব্যাক্তি বা সংস্থাকে লীজ প্রদানের বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ