সিলেটে ভোক্তা ও র‌্যাবের অভিযান, জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক;
  • প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৭ মাস আগে

দক্ষিণ সুরমায় র‌্যাব ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ভেজাল বিরোধী অভিযান চালিয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বিদেশী ব্রান্ডের লগো ব্যবহার, নকল ইঞ্জিন ওয়েল উৎপাদন, প্রক্রিয়াকরণ ও বিক্রির অপরাধে মুক্তা ট্রেডার্স নামের এক প্রতিষ্ঠানকে দেড়লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

র‌্যাব জানায়, প্রায় ১০ বছর থেকে ওই প্রতিষ্ঠানটি অবৈধ ব্যবসা করে আসছে। প্রতিষ্ঠানের চক্রটি গ্যারেজ ও দোকানে ব্যবহৃত ইঞ্জিন অয়েলের খালি বোতল সংগ্রহ করে রিফাইন করে আবার নকল ইঞ্জিন ওয়েল ভর্তি করে বাজারজাত করে আসছে সিলেটে। অভিযানে বিপুল পরিমান মবিল, সুপার ভি, মটোল, স্যাভলন, লিটেন, বাজাজ, টিভিএস, টোটাল, ক্যাসট্রোলসহ বিভিন্ন ব্রান্ডের নামি দামি কোম্পানির লগো সংবলিত কন্টেইনার, অব্যহৃত স্টিকার জব্দ করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে র‌্যাব-৯ এর এএসপি (গণমাধ্যম) ওবাইন। তিনি বলেন, ১ হাজার ৫০০ টি কন্টেইনার এবং ২ হাজার লিটার নকল ইঞ্জিন ওয়েল জব্দ করার পর ধ্বংস করা হয়।

ভোক্তা অধিকার ও সংরক্ষণ অধিদপ্তর সিলেটের সহকারী পরিচালক আমিরুল ইসলাম জানান, কারখানাটিতে ভেজাল ও নিম্নমানের মোড়কজাত করা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মবিল দেখে বোঝার উপায় নেই সেগুলো নকল। কারখানাটি থেকে বিপুল পরিমাণ বিক্রয় রশিদ জব্দ করা হয়েছে।

অভিযান সূত্রে জানা গেছে, সিলেটের দক্ষিণ সুরমার দক্ষিণ খোজারখলায় নকল মবিল উৎপাদনের কারখানায় বিভিন্ন নামীদামি ব্র্যান্ডের এবং নকল-ভেজাল মবিল মোড়কজাত করা হচ্ছিল। খবর পেয়ে অভিযান চালায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও র‌্যাব। এ সময় কারখানার দায়িত্বে থাকা কর্মচারী খালেক মিয়াকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদে প্রায় ১০ বছর ধরে এ ব্যবসা চালিয়ে আসার কথা স্বীকার করেন তিনি।

খালেক জনিয়েছেন, বিভিন্ন গ্যারেজ ও দোকান থেকে ব্যবহৃত নামীদামি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মবিলের খালি কনটেইনার সংগ্রহ করে কারখানায় আনা হয়। পরে সেগুলোতে বাজারের খোলা মবিল দিয়ে আবার নতুন করে মোড়কজাত করা হতো। মোড়কজাতের পর বাজারে প্রচলিত দামের চেয়ে তুলনামূলক কম দামে সরবরাহ করা হতো। ব্যবসায়ীরা বেশি লাভের জন্য সেগুলো কিনে নিয়ে গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করতেন।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ