ছাতকে খুন ও ডাকাতি মামলার আসামি গ্রেপ্তার

ছাতক প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:১১ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ বছর আগে

ছাতকে রেলওয়ে গোডাউনে নিরাপত্তা প্রহরী ফখরুল হত্যাসহ ডাকাতি মামলার আনোয়ার হোসেন (৩৮) নামের আরেক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার দুপুরে পুলিশ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চাটিবহর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ডাকাতিসহ একাধিক মামলার আসামি, আন্ত:জেলা এ ডাকাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়।

সহকারী পুলিশ সুপার, ছাতক সার্কেল বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে অভিযানে অংশ নেন ছাতক থানার সেকেন্ড অফিসার, চাঞ্চল্যকর ফখরুল হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হাবিবুর রহমান পিপিএম, এসআই আতিকুল আলম, এসআই মুহিন উদ্দিন, এএসআই মহি উদ্দিনসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্যবৃন্দ।

গ্রেপ্তারকৃত আনোয়ার ছাতক উপজেলার গৌরিপুর গ্রামের মৃত সোনা মিয়ার ছেলে। তার বর্তমান বসবাস পৌরশহরের মোগলপাড়া এলাকায়।

ডাকাতি চুরিসহ বিভিন্ন মামলায় সে একাধিকবার সাজা ভোগ করেছে। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক ডাকাতি, ছিনতাই, দ্রুতবিচার আইনে মামলা রয়েছে বলে পুলিশ সূত্র জানিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হাবিবুর রহমান পিপিএম জানিয়েছেন, আনোয়ারসহ ইতো মধ্যে ফখরুল হত্যা ও ডাকাতি মামলার ৭জন আসামি গ্রেফতার হয়েছে। এর মধ্যে ৬ জন চাঞ্চল্যকর ফখরুল হত্যা ও রেলের গোডাউন ডাকাতির সাথে সম্পৃক্ততার কথা আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী দিয়েছে।

উল্লেখ, ২৯ জুন রাত ১০টারদিকে প্রতিদিনের ন্যায় ছাতক রেলওয়ের নিরাপত্তা প্রহরী ফখরুল আলম রেলওয়ের গোডাউনের নৈশ প্রহরী হিসাবে দায়িত্ব পালন করে। সকাল ৬ টা পর্যন্ত দায়িত্ব শেষে নিজ বাসায় ফেরার কথা ছিল তার। কিন্ত অজ্ঞাত নামা ডাকাত দল রাত্র অনুমান ২ টার দিকে গোডাউনের তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে নিরাপত্তা প্রহরী ফখরুলকে নির্মম ভাবে খুন করে। পরে ডাকাতরা গোডাউনে থাকা রেলওয়ের লৌহ জাতীয় বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায়। পরদিন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রেলওয়ের গোডাউনে নৈশ্য প্রহরী ফখরুল এর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী নুরতাজ বেগম বাদী হয়ে পরদিন ছাতক থানায় একটি হত্যা মামলা (নং-২৩) দায়ের করেন।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ