কমলগঞ্জে ধলই চা বাগানে কাজে যোগ দিয়েছে চা শ্রমিকরা

সালাহ্উদ্দিন শুভ,কমলগঞ্জ;
  • প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:২০ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ৬ মাস আগে

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের ধলই চা বাগানে উপজেলা প্রশাসন, চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দ, শ্রম অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ও মালিক পক্ষের যৌথ বৈঠক শেষে দ্রুততম সময়ে মামলা প্রত্যাহার ও বিতর্কিত ব্যবস্থাপককে বদলীর আশ্বাসে দীর্ঘ ৩৭ দিন বন্ধ থাকার পর বৃহস্পতিবার ধলই চা বাগান খুলেছে। বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে ধলই চা বাগানের শ্রমিকরা কাজে যোগ দিয়েছে। গত ২৭ জুলাই সন্ধ্যায় আকস্মিক কর্তৃপক্ষ নোটিশ দিয়ে ধলই চা বাগান খোলার নোটিশ দিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধলই চা বাগান বন্ধ করেছিল।

মালিক পক্ষের নোটিশে গত ২৮ জুলাই থেকে ধলই চা বাগান দীর্ঘ ৩৭ দিন বন্ধ ছিল। এ নিয়ে গত ২৯ জুলাই থেকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগ দুই দফা বৈঠক, মৌলভীবাজার-৪ আসনের সাংসদ উপাধ্যক্ষ ড. এম এ শহীদের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে ১৭ আগষ্টের বৈঠকের পরও ধলই চা বাগান বন্ধ ছিল। এ নিয়ে শ্রীমঙ্গলস্থ শ্রম অধিদপ্তর কর্মকর্তার কার্যালয়ে কয়েক দফা বৈঠকের পরও কোন লাভ হয় নি।

সর্বশেষ বুধবার মৌলভীবাজার-৪ আসনের সাংসদ উপাধ্যক্ষ ড. এম এ শহীদের পরামর্শে ও নির্দেশনায় বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় আবারও ধলই চা বাগান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন,বাংলাদেশ শ্রম অধিদপ্তর শ্রীমঙ্গল কার্যালয়ের উপ পরিচালক নাহিদুল ইসলাম, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক, কমলগঞ্জ থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান, ধলই চা বাগান কোম্পানীর উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদ রাম ভজন কৈরীসহ চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।

বৈঠকে ব্যাপক আলোচনা শেষে বিতর্কিত ধলই চা বাগানের ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে বদলী ও চা বাগানের পক্ষে থানায় দায়ের করা মামলাটি দ্রুততম সময়ে প্রত্যাহারের আশ্বাস দেওয়া হয়। এর পর বেলা ১২টা থেকে ধলই চা বাগানের শ্রমিকরা দীর্ঘ ৩৭ দিন পর প্লান্টেশন এলাকায় চা পাতা উত্তোলন কাজে যোগ দেয়।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাম ভজন কৈরী বলেন,ধলই চা বাগান কোম্পানীর মালিক পক্ষে গত ২৭ জুলাই সন্ধ্যায় বে-আইনীভাবে ঘোষণাপত্রটি প্রত্যাহার করেন। তাছাড়া চা শ্রমিকদের দাবি বিতর্কিত ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে বদলী করা ও মাধবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু এবং নেতৃবৃন্দসহ ১৩ জন চা শ্রমিকের ওপর করা মামলাটি দ্রুততম সময়ে প্রত্যাহারের আশ্বাস প্রদান করেন মালিক পক্ষ। এ অশ্বাসে সন্তোষ প্রকাশ করে দীর্ঘ ৩৭ দিন পর ধলই চা বাগানের শ্রমিকরা বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে কাজে যোগ দিয়েছেন।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক দীর্ঘ ৩৭ দিন পর ধলই চা বাগান খোলা ও চা শ্রমকিদের কাজে যোগদানের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ধলই চা বাগান মালিক পক্ষের দেওয়া আশ্বাস পূরণ হলে আর ধলই চা বাগানে সমস্যা থাকার কথা নয়।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ