সিনহা হত্যা: আদালতে লিয়াকতের জবানবন্দি

সিলেট ডায়রি ডেস্ক;;
  • প্রকাশিত: ৩০ আগস্ট ২০২০, ৫:৫৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৬ মাস আগে

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার প্রধান আসামি বরখাস্ত পরিদর্শক লিয়াকত আলী ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। আদালত পুলিশের পরিদর্শক প্রদীপ কুমার দাশ জানান, রোববার বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে তাকে আদালতে আনা হয়।বিকাল ৪টা ৩৫ মিনিটে জবানবন্দি শেষ হয়। তৃতীয় দফায় তিন দিনের রিমান্ডের দুই দিন পর তাকে আদালতে তোলা হল। এর আগে বেলা সোয়া ১১টায় তাকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়।

জবানবন্দি শেষে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের এএসপি খাইরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, মামলার ১ নম্বর আসামি লিয়াকত আমাদের কিছু তথ্য উপাত্ত আমাদের কাছে উনি স্বীকার করেছেন। পুলিশের কাছে দেওয়া স্বীকারোক্তির কোনো মূল্য নাই যদি না ম্যাজেস্ট্রট সাহেবের কাছে সেটা স্বীকার করেন। ওনার ‘ওয়ান সিক্সটি ফোর’ করার জন্য আমরা বিজ্ঞ আদালতে ওনাকে উপস্থাপন করেছিলাম।

হাতে থাকা একটি খাম সাংবাদিকদের দেখিয়ে খাইরুল বলেন, “আমরা অলরেডি ওনার এটা পেয়েছি। এখন কী বলেছে না বলেছে আমরা এটা জানি না এখনও। এটা পড়ে দেখি নাই। আমার বিশ্বাস যে উনি সত্যিটাই প্রকাশ করেছেন।”

এর আগে সকালে আদালত পরিদর্শক প্রদীপ বলেন, লিয়াকত আলীকে আদালতে আনার পর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম ( কক্সবাজার-৪) তামান্না ফারাহর আদালতে তোলা হয়। এরপরই মামলার তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার জন্য তাকে বিচারকের খাস কামরায় নেওয়া হয়।

এর আগে আর্মড পুলিশের তিন সদস্য জবানবন্দি আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। তারা আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের (এপিবিএন) এএসআই শাহজাহান, কনস্টেবল রাজীব ও কনস্টেবল আব্দুল্লাহ।

গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে নিহত হন সিনহা। এ ঘটনায় গত ৫ অগাস্ট সিনহার বোন শাহরিয়ার শারমিন বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরদিন টেকনাফ থানার সাবেক ওসিহ সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। টেকনাফ থানার এই সাবেক ওসিন নামও প্রদীপ কুমার দাশ। তিনি রিমান্ডে রয়েছেন।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ