১০ কিলোমিটার দৌড়ে পর্বতারোহী রেশমা নিহতের বিচার দাবি

সিলেট ডায়রি ডেস্ক;
  • প্রকাশিত: ২৮ আগস্ট ২০২০, ৩:০৬ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৬ মাস আগে

সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার সকালবেলা তাঁরা দৌড়ান। এবারের দৌড় ছিল ভিন্ন। তাঁরা দৌড়াচ্ছিলেন আর প্রতিবাদ জানাচ্ছিলেন। এভাবে সিলেট নগরীর কেন্দ্রস্থলের সড়কে ১০ কিলোমিটার পথ দৌড়ে এসে থামলেন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে। সেখানে এক মিনিট নীরবতা পালন করে প্রদর্শন করলেন ব্যানার ‘জাস্টিস ফর রত্না’।

৭ আগস্ট ঢাকার চন্দ্রিমা উদ্যানে মাইক্রোবাস চাপায় নিহত পর্বতারোহী রেশমা নাহার রত্নার স্মরণে আজ শুক্রবার সকালে এভাবেই প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছেন সিলেটের রানার্স ও সাইক্লিস্টরা।

৫০ জন রানার ও সাইক্লিস্ট এই কর্মসূচিতে একাত্ম হন। সিলেট নগরীতে কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে পর্বতারোহী রেশমা নাহার নিহতের ঘটনায় দ্রুত বিচার ও সড়কে আলাদা নিরাপদ বাইসাইকেল লেনের দাবি জানানো হয়।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সমাপনী বক্তব্য দেন সিলেট রানার্স কমিউনিটির অ্যাডমিন মনজুর আরিফ। তিনি বলেন, ‘আমরা রেশমা হত্যা ঘটনার সুষ্ঠু ও দ্রুত বিচার দাবি করছি। পাশাপাশি রাস্তায় বেপরোয়া গাড়ি চালানো বন্ধ ও প্রধান প্রধান সড়কে সাইকেলের জন্য আলাদা লেনের দাবি করছি।

সিলেটসহ সারা বাংলাদেশেই ট্রাফিক ব্যবস্থা অনেক দুর্বল। প্রতিদিনই রাস্তায় যানজট ও দুর্ঘটনা ঘটছে। আশপাশের ছোটখাটো কাজে যাতায়াতের ক্ষেত্রে মানুষকে সাইকেল চালানোতে উৎসাহী করা উচিত। এতে যানজট যেমন কমবে, তেমনি পরিবেশও ভালো থাকবে। অনিরাপদ সড়ক সাইকেল চালানোর জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

’রানার্স ও সাইক্লিস্ট কমিউনিটির সদস্যরা জানান, বাংলাদেশের কেওক্রাডংয়ে ওঠার মাধ্যমে রেশমা পর্বত অভিযান শুরু করেছিলেন। গত বছর লাদাখের স্তোক কাংরি পর্বত জয় করেছিলেন। এর আগে আফ্রিকার কিলিমাঞ্জারো ও মাউন্ট কেনিয়া জয়ের জন্য গিয়েছিলেন। আশপাশের দেশে পর্বত পাড়ি দিয়ে ভারতে নেহেরু ইনস্টিটিউট অব মাউন্টেনিয়ারিংয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে এভারেস্টের চূড়ায় ওঠার স্বপ্নও দেখছিলেন রেশমা। জন্য নিজেকে প্রস্তুতির মধ্যে রেখেছিলেন। ঢাকার নিউমার্কেট এলাকায় আইয়ুব আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন। সকালবেলা সাইক্লিং করার সময় তাঁকে চিরবিদায় নিতে হয়েছে বেপরোয়া গতির মাইক্রোবাসের চাপায়।

সিলেট নগরীর প্রায় সব রাস্তা এখন ভাঙাচোরা অবস্থার উল্লেখ করে রানার্স ও সাইক্লিস্টদের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে কিছু দাবিও উত্থাপন করা হয়। এ ব্যাপারে কমিউনিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘রাস্তাঘাটের এই ভাঙাচোরা অবস্থা কিন্তু সড়ক দুর্ঘটনা ডেকে আনে। আমরা এই ব্যাপারে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

যাতে নতুন পরিকল্পনায় সিলেটের প্রধান সড়কগুলোর সংস্কার ও সড়ক উন্নয়ন পরিকল্পনার সঙ্গে সাইকেল লেন তৈরি করা হয়। এতে শুধু সাইক্লিস্ট নয়, উপকৃত হবেন সড়কপথে চলাচলকারী নাগরিকেরাও। সড়ক দুর্ঘটনাও তখন হ্রাস পাবে।’

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ