আসামের সঙ্গীতশিল্পী তাহেরা বেগম লস্করের মাতৃবিয়োগ

সিলেট ডায়রি ডেস্ক;
  • প্রকাশিত: ২১ আগস্ট ২০২০, ১:৪৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৬ মাস আগে

ভারতের আসাম রাজ্যের বরাক উপত্যকার প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী তাহেরা বেগম লস্করের মা সফিয়া খাতুন আর নেই। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। গত মঙ্গলবার দুপুর ২টা ২০ মিনিটে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে আসামের শিলচর জেলার রংপুরস্থ বাসভবনে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৫ বছর। সফিয়া খাতুন মৃত্যুকালে চার ছেলে, চার মেয়ে, জামাতা, নাতি-নাতনিসহ অজস্র আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার সন্তানেরা হলেন তাজ উদ্দিন লস্কর, মিনারা বেগম লস্কর, তাহেরা বেগম লস্কর, সাদুল্লাহ লস্কর, জসিম উদ্দিন লস্কর, ইফতেখার লস্বর মুন্না (লন্ডন প্রবাসী), ইসমত আরা বেগম লস্কর, ফিরোজা বেগম লস্কর।

সফিয়া খাতুনের স্বামী আঠতাব উদ্দিন লস্কর ছিলেন শিলচর জেলা জজ আদালতের সেরেস্তাদার। তিনি ১৯৯৬ সালে মারা যান। শিল্পা তাহেরা বেগম লস্করের মা সফিয়া খাতুন ছিলেন ধর্মপ্রাণ উদার এবং সংস্কৃতিমনা নারী। মুসলিম পরিবারের গৃহবধু হলেও তিনি ছেলে মেয়েদের সংস্কৃতিচর্চায় উৎসাহিত করেন। যে কোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গোটা পরিবারকে নিয়ে হাজির হতেন। মায়ের প্রেরণা ও উৎসাহে তাহেরা বেগম লস্কর ভারত ও বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতে এক সুপরিচিত মুখ হয়ে উঠেন।

মঙ্গলবার তাহেরার মায়ের মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে পরিচিত মহলে শোকের ছায়া নেমে আসে। অনেকেই রংপুরস্থ বাসভবনে গিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানিয়ে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। ওইদিন বিকেলে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে সফিয়া খাতুনের মরদেহ সমাহিত করা হয়।

সঙ্গীতশিল্পী তাহেরা বেগম লস্কর বলেন, আমাদের সিলেটসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে আত্মীয় স্বজনরা আছেন। আজকে আমার মায়ের চার দিনের শিরনি করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ