সংবাদকর্মী জাহিদ’র উপর হামলা, ওসমানীতে ভর্তি

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ৬ আগস্ট ২০২০, ২:৩৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ বছর আগে

সিলেট’র শহরতলী পীরের বাজারে জাহিদুল ইসলাম নামের এক সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা করা হয়েছে। এঘটনায় স্থানীয় জনতা দোষীদের শাস্তির দাবি জানিয়ে প্রায় ১ ঘন্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে। আহত জাহিদুল ইসলাম সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) বেলা ২টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে। আহত অবস্থায় জাহিদুল ইসলামকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
জানা যায়, সামজিক সংঘটন মিছারেব ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন’র উদ্যোগে সিলেট মুজীব জাহান রেডক্রিসেন্ট’র সার্বিক সহযোগীতায় সিলেট শহরতলীর খাদিমপাড়া ইউনিয়নের পিরের বাজারস্থ এম কে মার্কেটে আয়োজিত সেচ্ছায় রক্ত দান কর্মসূচীর সংবাদ সংগ্রহকালে চিহ্নিত ছিনতাইকারী ও সন্ত্রাসী মাহতাবসহ একদল সন্ত্রাসী বাহিনী স্থানীয় অনলাইন ও প্রিন্ট পত্রিকার জৈন্তাপুর উপজেলা প্রতিনিধি জাহিদুল ইসলাম’র উপর পীরের বাজারস্থ শাহসুন্দর হোটেলের সামনে সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। সন্ত্রাসীরা তার মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ, ঘড়ি হাতিয়ে নেয়। এতে সে মারাত্মক ভাবে আহত হয়। স্থানীয়রা আহত জাহিদুল ইসলামকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।
এঘটনার খবর পেয়ে শাহপরান থানা পুলিশ টিম ও খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমেদ ও চিকনাগুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুর রশিদ ঘটনাস্থলে যান এবং ন্যায় বিচারের আশ্বাস দিলে স্থানীয় জনতা সড়ক অবরোধ তুলে নেয়।
এ বিষয়ে আহত জাহিদুল ইসলাম বলেন আমি পেশাগত দায়িত্ব পালনে পীরের বাজার অবস্থান করছিলাম আমার পরিচিত এক বড় ভাইকে সিলেটগামী গাড়িতে উঠিয়ে দিয়ে রাস্তায় দাড়ানো অবস্থায় হঠাৎ করে মাতাব নামের এক যুবক এসে আমার হাতে থাকা মোবাইল ফোন, হাত ঘড়ি ও মানিব্যাগ কেড়ে নেয়। আমি প্রাণে বাঁচতে দৌড়ে পাশে শাহপরান হোটেলে আশ্রয় নেই। পরে তারা ৮/১০ জন হোটেল ঢুকে আমাকে এলোপাতাড়ি কিলগুশি মারতে শুরু করে।
এক পর্যায়ে আমি হোটেলের ক্যাশে অবস্থানকারি মহাজনকে বলি আমাকে তাদের কবল থেকে বাঁচাতে, এই সময় তারা আরো উত্তেজিত হয়ে আমাকে প্রাণে মারার চেষ্টা করে। আমি প্রাণ বাঁচাতে হোটেলের পিছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গিয়ে এক লন্ডনী বাড়িতে আশ্রয় নেই।
পরে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমেদ ও আমার নিজ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে আমার হাতে থাকা অন্য মোবাইল দিয়ে বিষয়টি অবগত করি এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় আমাকে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
আহত জাহিদুল আরে বলেন, সন্ত্রাসী হামলার মূল কারণ হিসেবে গত ২৫ আগস্ট (২০১৯) জৈন্তাপুর উপজেলার চিকনাগুল ইউনিয়নের উপহার কমিউনিটি সেন্টার সংলগ্ন একটি ফ্লাট বাড়ি থেকে মিনারা চৌধুরী, মাতাব সহ ১৯ জনকে অবৈধ কাজে লিপ্ত থাকায় জৈন্তাপুর মডেল থানা পুলিশ আটক করে, আমি স্থানীয় সংবাদকর্মী হিসেবে ঐ সংবাদটি প্রকাশ করি।পাশাপাশি গত সোমবার (৩ আগস্ট) খাদিমপাড়া ইউনিয়নের উত্তর পীরেরচক গ্রামে অটোরিকশায় চার্জ লাগাতে গিয়ে রাসেল নামের এক যুবক নিহতদের ঘটনা পত্রিকায় প্রকাশ করি, সত্য এই দুটি ঘটনা প্রচার করার কারনে হয়তো আমার উপর হামলা করতে পারে বলে আমার ধারনা।
এ বিষয়ে তার পরিবারের পক্ষে থেকে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ