ঈদের পর বামদের আন্দোলন

সিলেট ডায়রি ডেস্ক;
  • প্রকাশিত: ২০ জুলাই ২০২০, ৪:১৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১ বছর আগে

রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধের গণবিরোধী সিদ্ধান্ত বাতিল, সরকারের দুর্নীতি, লুটপাট, ভুলনীতি পরিহার এবং লোকসানের জন্য দায়ী বিজেএমসি ও পাট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। সোমবার (২০ জুলাই) দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যেও বঙ্গভবন থেকে গণভবন পর্যন্ত দীর্ঘ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। একই দাবিতে সারাদেশে মানববন্ধন-বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

মাববন্ধনে নেতৃবৃন্দ বলেন, লোকসানের অজুহাতে ২৬টি রাষ্ট্রীয় পাটকল সরকার গত ২ জুলাই বন্ধ ঘোষণা করেছে। অথচ লোকসানের প্রকৃত কারণ কী তা চিহ্নিত করে দূর করার কোনো উদ্যোগ সরকার নেয়নি। লোকসানের জন্য শ্রমিকরা দায়ী নয়, দায়ী সরকারের দুর্নীতি, লুটপাট ও ভুলনীতি। এর দায় শ্রমিক ও জনগণ নেবে না। তাই দাবি আদায়ে ঈদের পর বৃহত্তর কর্মসূচির ঘোষণা করা হবে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, যখন সারা পৃথিবীতে পাট ও পাটজাত পণ্যের চাহিদা বাড়ছে, ইউরোপের ২৮টি দেশ কৃত্রিম তন্তু, পলিথিন ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে। আমেরিকায় ২০২০ সালের পর দেড় হাজার কোটি টাকার পাটের শপিং ব্যাগের চাহিদা তৈরি হবে। বিশ্বে ৫০০০ কোটি পিস শপিং ব্যাগের চাহিদা প্রতি বছর। এর মাত্র ৩ থেকে ৫ শতাংশ বাজার ধরতে পারলে আমাদের বর্তমান কারখানাগুলো দিয়ে চাহিদা মেটানো সম্ভব না, নতুন কারখানা স্থাপন করতে হবে। এ সময়ে এসে পাটকল বন্ধ করা কার স্বার্থে? এ সিদ্ধান্ত গণবিরোধী ও গোটা জাতির সঙ্গে বিশ্বাস ঘাতকতার শামিল।

নেতৃবৃন্দ বলেন, লোকসানের মূল কারণ পুরোনো যন্ত্রপাতি, অদক্ষ ও মাথাভারী প্রশাসন, মৌসুমে পাট কিনতে সময়মতো অর্থ ছাড় না করা, পাট পণ্যের বহুমুখীকরণ না করা এবং দুনীতি, লুটপাট। লোকসানের কারণসমূহ দূর করে আধুনিকায়ন করলে পাটকল লাভজনক করা সম্ভব।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার এমন সময়ে পাটকল বন্ধ ঘোষণা করলো যখন পাটের সৌসুম। ইতোমধ্যে পাটকল বন্ধ ঘোষণার পরই পাটের দাম মণ প্রতি প্রায় ৪০০/ ৫০০ টাকা কমে গেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেশের ৪০ লাখ পাট চাষী।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ