সিলেটে করোনা হাসপাতালের ১০ মিটার দূরত্বে পশুর হাট!

আমিনুল ইসলাম রোকন;
  • প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০২০, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ১ বছর আগে

সিলেটে করোনা হাসপাতালের পাশেই বসছে কোরবানির পশুর হাট। মাত্র ১০ মিটার দূরত্বে রয়েছে হাটটি। স্থানীয়রা বলছেন, করোনা হাসপাতালের পাশে পশুর হাট বসালে সিলেটের করোনা পরিস্থিতি ভয়ংকর রূপ ধারণ করতে পারে। যে কারণে সিদ্ধান্তটি ঘিরে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছেন নগরবাসী।

সিলেট নগরের চৌহাট্টায় অবস্থিত সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ। শহরের ঠিক মধ্যখানে অবস্থিত মাঠটি রাজনৈতিক সব দলই ব্যবহার করে থাকে। সব দলের সমাবেশ আর ইসলামি কর্মসূচি এ-ই মাঠেই হয়ে আসছে। কিন্তু এবার এ-ই মাঠে কোরবানির পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলাপ্রশাসন । ইতোমধ্যে ইজারাসহ সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন । নগর ভবন অবশ্য বলছে স্বাস্থ্য বিধি মেনেই হাট পরিচালিত হবে। কিন্তু নগরবাসী বলছেন, হাটটির ঠিক বিপরীত পাশেই সিলেটের সরকারি ব্যবস্থাপনার করোনা সেবা প্রতিষ্ঠান শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল। মাত্র ১০ মিটার দুরত্ব। শেষ পর্যন্ত হাটটি বসলে ভয়ানক এক পরিস্থিতির আশংকা করছেন অনেকে। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন নগরবাসী। প্রতিবাদী হয়ে উঠছে ইসলামি দলগুলোও।
সমস্যা আরো আছে, আলিয়া মাদ্রাসা এবং এ-ই মাঠটির চারপাশ ঘিরে প্রায় অর্শতাধিক হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অবস্থান। এ অবস্থায় আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে পশুর হাট বসালে তার প্রভাব পড়বে চিকিৎসা নিতে আসা সেবাপ্রত্যাশীদের মাঝে। সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ সংলগ্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, মাঠের পশ্চিম পাশে ২০ থেকে ৩০ মিটার এলাকার ভেতরে রয়েছে মহানগর হাসপাতাল, ক্রিসেন্ট ব্লাড ব্যাংক, প্লাজমা, প্লাটিলেট, রেড সেল, সিটি পলি ক্লিনিক ও শিশু হাসপাতাল, পাইওনিয়ার হাসপাতাল, গ্রীনভিউ ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ওয়েল কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ল্যাব ডেল্টা ডায়াগনস্টিক ও ক্যান্সার নির্ণয় সেন্টার। মাঠের দক্ষিণ পাশে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতাল, করোনা আইসোলেশন সেন্টার। এছাড়াও শাহজালাল দরগার সংলগ্ন মিনারের পাশে রয়েছে মেডিএইড হার্ট সেন্টার। রয়েছে ফার্মেসিসহ নানা প্রতিষ্ঠান।
বাণিজ্যের তুলনায় জনস্বাস্থ্য ও জনস্বার্থ বিবেচনার তাগিদ নগরবাসী ও পরিবেশবিদদের। অন্যান্যবারের মত শহরের মধ্যে না রেখে লোকালয় থেকে দূরে হাট বসানো না হলে স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হবে বলে অভিমত তাদের।
করোনা পরিস্থিতিতে রাজধানী ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে প্রধান প্রধান চলাচল সড়ক ও জনবসতি এড়িয়ে শহরতলীর ফাঁকা স্থানে কোরবানির অস্থায়ী পশুর হাট বসাতে সুপারিশ করেছে সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থা।
প্রতিবেদনে বলা হয়, ঈদুল আজহা আসন্ন। জিলহজ মাসের চাঁদ দেখাসাপেক্ষে আগামী পহেলা আগস্ট ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। এ সময়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় অস্থায়ী পশুর হাট বসে। এ বছর করোনা মহামারির কারণে হাটগুলো অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হবে। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পরিকল্পিতভাবে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা না গেলে করোনা সংক্রমণের অধিক ঝুঁকির শঙ্কা রয়েছে।
করোনা ইতোমধ্যেই সিলেট বিভাগে ভয়াবহ আকার নিয়েচগে। গত ১৫ এপ্রিল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মারা যান ওসমানী মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক ডা. মঈন উদ্দিন। সেই থেকে মৃত্যুর মিছিল চলছে সিলেটে । সংক্রমণও ঘটছে দ্রুত। তিন মাসের ব্যবধানে ৬ হাজার ছুয়ে যাচ্ছে। আর এ ক’দিনে সিলেট বিভাগে শতকের ঘর ছুয়েছে মৃত্যুর সংখ্যাও । রোববার পর্যন্ত যে সংখ্যা ১০১ জন।
সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, স্বাস্থ্য বিধি মেনে টিলাগড়ে এমসি কলেজ মাঠ, সরকারি আলিয়া মাদরাসা ময়দান আর দক্ষিণ সুরমায় অবস্থিত ট্রাক টার্মিনালে কোরবানির পশু বেচাকেনার জন্য জেলা প্রশাসন অনুমতি দিয়েছে। সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ইজারা দেয়ার জন্য টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিধি মেনেই হাট পরিচালনা করা হবে।
সিলেট আলিয়া মাদরাসা মাঠে পশুর হাট বসানোর সিদ্ধানের প্রতিবাদে মানবন্ধন করেছে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। স্থানীয় এলাকাবাসীও যোগ দেন তাতে । এসময় তারা ‘আত্মঘাতি’ এ সিদ্ধান্ত থেকে দ্রুত সরে এসে শহরতলি অথবা নগরের বাইরে খোলা কোনো জায়গা হাট সরিয়ে নেয়ার আহবান জানান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি।
আজ সোমবার (১৩ জুলাই) দুপুর ১টায় সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের পাশে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে বিশাল মানববন্ধন করা হয়েছে। মানবন্ধনে শিক্ষার্থীরা এবং এলাকাবাসী মাদ্রাসার মাঠে পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানান।
মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসার ছাত্র নূর হোসেন ফারুক, শোয়েব আহমদ, শরীফ আহমেদ, এলাকাবাসীর পক্ষে ছিলেন, লিমন আহমেদ ও গুলজার আহমদসহ এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ হচ্ছে একটি ঐতিহ্যবাহী মাঠ। এখানে বছরের দুইটি ঈদের জামাত এবং ধর্মীয় অনুষ্ঠান ওয়াজ মাহফিলও অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও পাশে করোনা আইসোলেশন হাসপাতাল এবং পশ্চিম পাশে দুইটি ক্লিনিক এবং আবাসিক এলাকা । এই মাঠে অতীতে কখনো পশুর হাট বসেনি।
মানববন্ধনে আগামীকাল (মঙ্গলবার) বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও সিসিক মেয়রের কাছে স্মারকলিপি প্রদানের ঘোষণা দেন বক্তারা।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ