মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ৭০ মণ নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধার

;
  • প্রকাশিত: ৬ জুলাই ২০২০, ৭:১২ অপরাহ্ণ | আপডেট: ১২ মাস আগে

বড়লেখা প্রতিবেদক:: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ৭০ মণ নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধার করা হয়েছে। এই ঘটনায় চার ব্যক্তিকে ৩৬ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার (১ জুলাই) বেলা আড়াইটা থেকে বিকেল সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত পৌরশহরে এই অভিযান চালানো হয়। ভ্রাম্যমান আদালত, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, থানা পুলিশের কাছে গোপন তথ্য ছিল বড়লেখা শহরের বিভিন্ন স্থানে নিষিদ্ধ পলিথিন মজুদ করে বিক্রি করা হচ্ছে।

বুধবার সকাল থেকে পুলিশের একটি টিম সাদা পোষাকে গোদামগুলো নজরদারিতে রাখে। পুলিশের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. শামীম আল ইমরান অভিযান চালান।

এ সময় শহরের শাহজালাল শপিং সিটির ৩টি, বিসমিল্লাহ মার্কেটের ২টি ও উত্তর বাজার এলাকার ১টি গোদাম থেকে ৭০ মণ নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধার করা হয়। যার বর্তমান বাজার মূল্য আনুমানিক নয় লাখ টাকার। নিষিদ্ধ পলিথিন মজুদের অভিযোগে ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. শামীম আল ইমরান সেলিম আহমদ নামের এক ব্যবসায়ীকে ২০ হাজার টাকা, আব্দুল হাছিবকে পাঁচ হাজার এবং আব্দুস সামাদকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন। অভিযানে অন্যদের মধ্যে অংশ নেন বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইয়াছিনুল হক, থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রতন দেবনাথ, উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রভাকর রায়, বড়লেখা পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল মতিন, আব্দুল মালিক জুনু প্রমুখ।

অন্যদিকে একই অভিযানে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুসরাত লায়লা নীরা পলিথিন মজুদের অভিযোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মো. ওমর হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে ছয় হাজার টাকা জরিমানা করেন। বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ইয়াছিনুল হক বলেন, ‘কয়েকদিন থেকে গোপন তথ্য ছিল পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে নিষিদ্ধঘোষিত বিপুল পরিমান পলিথিন মজুদ আছে। এই তথ্যের ভিত্তিতে নজরদারি বাড়াই।

এর আগে গত ২৯ জুন সোমবার ভোরে পলিথিন উদ্ধার করে তিন জনের নামে মামলা দেওয়া হয়েছে। বুধবার সকাল থেকে গোদামগুলোতে সাদা পোষাকে পুলিশের নজরদারি বাড়ানো হয়। দুপুর আড়াইটা থেকে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান পলিথিন জব্দ করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত এ অভিযান চলে।’ বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. শামীম আল ইমরান বলেন, ‘থানার ওসি’র কাছে গোপন তথ্য ছিল। শহরের বেশ কয়েকটি গোদামে পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে নিষিদ্ধঘোষিত বিপুল পরিমান পলিথিন মজুদ করা হয়েছে।

এই গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক অভিযান চালানো হয়। এতে প্রায় ৯ লাখ টাকা মূল্যের বিপুল পরিমাণ পলিথিন জব্দ করা হয়। অভিযানে চারজনকে ৩৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পরে এগুলো পোড়ানো হয়েছে। এখানে পরিবেশ আইনে নিষিদ্ধ কোনো ধরণের দ্রব্য ও কার্যক্রম করতে দেওয়া হবে না। এজন্য প্রশাসন ও পুলিশের তৎপরতা আছে।’

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ