জনগণ দুর্নীতি আর অপশাসনের প্রতিকার চায়: বিশ্বনাথে লুনা

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি;
  • প্রকাশিত: ২০ এপ্রিল ২০২২, ১:১১ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ২ বছর আগে

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্ঠা ও নিখোঁজ নেতা এম. ইলিয়াস আলীর সহধর্মিনী তাহসিনা রুশদীর লুনা বলেছেন, সরকার দুর্নীতির মহাচ্ছবি স্থাপন করেছে। দেশের মানুষের কমের্র কোন ব্যবস্থা নেই। সব কিছু লুটে নিয়েছে সরকারী দলের লোকগুলো। প্রত্যেকটি অফিস আদালতে টাকা ছাড়া কাজ হয় না। দেশের জনগণ এই দুর্নীতি-দু:শাসন, অপ:শাসনের প্রতিকার চায়। প্রতিকারে সবাইকে একতাবদ্ধ হয়ে লড়াই করতে হবে।

মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) সিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা, পৌর বিএনপির, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে পৌর শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারের পাশে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাবেক সাংগঠনিক এম. ইলিয়াস আলী ও তাঁর গাড়ী চালক আনছার আলীকে সরকারের গুম নামক কারাগারে ১০ বছর বন্দির প্রতিবাদে ইফতার পূর্ববর্তি আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তাহশিনা রুশদীর বলেন, এ সরকার দুর্নীতি আর গুম ছাড়া কি করেছে? ইলিয়াস আলীকে ১০ বছর আগে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা গুম করেছে। শুধু ইলিয়াস আলী নয় বাংলাদেশের বিভিন্ন সংবাদ ও মানবাধিকার সংস্থার তথ্যানুযায়ী বাংলাদেশের ৭শ এর বেশি নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। এখন দেশে যারা বিএনপি করে সবাই মামলার আসামী। বাপ-ছেলে এমনকি কারো স্ত্রী মামলার আসামী হয়েছেন। কারণ ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করে তাদের নীল নকশা বাস্তবায়ন করা। তারা ক্ষমতায় থেকে বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুঁড়িতে পরিনত করেছে। জিনিসপত্রের মূল্যবুদ্ধিতে সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতায় বাহিরে চলে গেছে। দেশের মানুষের কর্মের কোন ব্যবস্থা নেই। সব কিছু লুটে নিয়েছে সরকারী দলের লোকগুলো। প্রত্যেকটি অফিস আদালতে টাকা ছাড়া কাজ হয় না। দুর্নীতির মহাচ্ছবি পরিনত হয়েছে। দেশের জনগণ এই দুর্নীতি-দু:শাসন, অপ:শাসনের প্রতিকার চায়। তাই সবাইকে একতাবদ্ধ হয়ে লড়াই করতে হবে।

তিনি আরো বলেন বেগম খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে। তাঁর সুচিকিৎসা পর্যন্ত সরকার করে নাই। তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে। বেগম জিয়াকে মুক্ত করতে এবং ইলিয়াস আলীসহ সকল নেতাকর্মীদের ফিরিয়ে আনতে রাস্তায় দুর্বার আন্দোল গড়ে তুলে এ সরকারকে হটিয়ে দিতে হবে। এনমকি তথ্যাবদায়ক সরকার গঠন করে সুষ্ট নির্বাচনের মাধ্যমে গন্তন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে।

লুনা বলেন, দেশে ইলিয়াস আলীর মতো সাহসী নেতা কমই আছেন। এখনো ইলিয়াস আলীর জন্য হাজারো নেতা প্রাণ দিতে প্রস্তুত। কারন ইলিয়াস আলী ৫ বছর ক্ষমতায় থেকে বিশ্বনাথ-বালাগঞ্জ-ওসমানীনগরে যে উন্নয়ন করেছেন কিন্তু গত ১৫ বছরেও তার অর্ধেক উন্নয়ন হয়নি। বিশ্বনাথের উন্নয়নকে ফিরিয়ে আনতে ইলিয়াস আলীকে সরকারের গুম নামক কারাগার থেকে মুক্ত করতে হবে। বেগম জিয়াসহ সকল নেতাকর্মীদের মুক্ত করতে রাস্তায় দুর্বার আন্দোল গড়ে তুলে এ সরকারকে হটিয়ে দিতে হবে। এনমকি তথ্যাবদায়ক সরকার গঠন করে সুষ্ট নির্বাচনের মাধ্যমে গন্তন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন মিলন। বক্তব্যে তিনি বলেন, আগামী ঈদের পরে সরকারকে উৎখাত করতে আমাদেরকে আন্দোলনে নামতে হবে। বেগম খালেদা জিয়াকে আবার প্রধানমত্রী করতে হবে। তবেই এম ইলিয়াস আলীসহ সকল গুম হওয়া নেতাকর্মিদেরকে মুক্ত করতে হবে।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি জালাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক লিলু মিয়া এবং পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বশির আহমদের সাধারণ সম্পাদক যৌথ পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কাইয়ূম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমরান আহমদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম আহমদ, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মখন মিয়া, উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মোজাহিদ আলী।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, পৌর বিএনপির সভাপতি হাজী আব্দুল হাই, উপজেলা বিএনপির সাংগঠকিন সম্পাদক সুরমান খান, পেীর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহমান খালেদ, উপজেলা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক শামসুল ইসলাম, সদস্য সাইদুর রহমান রাজু, পৌর যুবদলের আহবায়ক শাহজাহান, উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক রাসেল আহমদ, সাদস্য সচিব ফাহিম আহমদ প্রমূখ। এসময় জেলা, উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন বিএনপি,অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মি উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরি