কুয়াশা ঘেরা শীতের সকাল

জামাল হোসেন, শ্রীমঙ্গল;
  • প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০২০, ৪:৫৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: ৩ বছর আগে

নভেম্বর শেষ!আসছে ডিসেম্বর মাস। এ মাসের শুরুতেই শীতের তীব্রতা একটু বেশি। বাতাসে হিমের ছোঁয়া, গাঁ শিরশির করে। ঘাঁসের ওপর শিশির জমে থাকে । কবি বলেন- ঘন শিশির মাখা মেঠো ঘাসের পথ ধরে,হাজার বছর ধরে শীত কন্যা নাইয়রির বেশে আসে;এ দেশে, আসবে, গ্রাম-বাংলার জনপদে।

ষড় ঋতুর দেশ বাংলাদেশে মূলত পৌষ-মাঘ এ দুই মাস শীতকাল হলেও,হেমন্তকেই বলা হয় শীতের পূর্বাভাস। হেমন্তের রাতে এখন মৃদু কুয়াশা; বাতাসে শীতের হিম হিম স্পর্শ। কুয়াশার আঁচল সরিয়ে শিশিরবিন্দু মুক্তো দানার মতো দ্যুতি ছড়াতে শুরু করেছে ভোরের নরম রোদে।

ভোরে দেখা যায়,হালকা কুয়াশায় ঢেকে রয়েছে রাস্ত-ঘাট। কচি ধানপাতায় জড়িয়ে রয়েছে মুক্তোর মতো শিশির বিন্দু। ঘাসের ওপরও ভোরের সূর্য কিরণে হালকা লালচে রঙয়ের ঝিলিক দিচ্ছে শিশির।বিকেল থেকে কুয়াশায় মুখ ঢাকছে মাঠঘাট। রাতভর টুপটাপ কুয়াশা ঝরছে। সকালের পরে কুয়াশা কেটে উঁকি দিচ্ছে সূর্য। শীতের আগমন শুরু হয়েছে সারা দেশে।

এ বছর অগ্রহাণের শুরু থেকেই সন্ধ্যার পর শীত পড়তে শুরু করেছে। সকালে কুয়াশার দেখা মিলছে চারদিকে। শীতের আগমনী বার্তায় ঘন কুয়াশার চাদরে ঢেকে গেছে দেশের অন্যতম শীত প্রধান অঞ্চল চায়ের রাজধানীখ্যাত মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল।সেটা নির্দিদ্বায় বলা যায় সকালে পাহাড়ি জনপথের দিকে দৃষ্টি দিলে।

শীতের দীর্ঘ রাতে কুয়াশার আবরণ গায়ে মেখে সুবহে সাদিকে ভেসে আসে আজানের ধ্বনি। গাছে গাছে তখন পাখিদের মুখরিত। কলকাকলিতে ঘুম ভাঙে জনমানবের। সকালে পথঘাট হালকা কুয়াশার চাদরে ঢেকে যায়। সবুজ ঘাসের ওপর ঝরছে শিশির কণা। শিশির ভেঙে চাষি ছুটে যান সবুজ সবুজ মাঠ প্রান্তের মায়াময় ক্ষেতে। রোদের আলোয় ঘাসের ওপর ঝরে পড়া শিশির বিন্দু চকচক করে ওঠে।

শীতের আগমনী বার্তায় প্রস্তুতিও শুরু করেছে এ এলাকার মানুষ। বস্তাবন্দী রাখা গরম কাপড় বের করতে শুরু করেছে। সন্ধ্যায় ও ভোরে হাঁটা-হাঁটি শেষে জমছে চায়ের আড্ডা।শীতের এই সময়টি উপভোগের সুন্দর সময় বলে মনে করেন অনেকে। তবে দিনের বেলায় ঘটছে শীতের ঠিক বিপরীত।

আবহাওয়াবিদদের মতে, বাংলাদেশে বর্ষার কারণ যেমন বঙ্গোপসাগর থেকে আসা মৌসুমি বায়ু, তেমনি শীতের উৎস হিমালয় থেকে আসা উত্তরের হিমেল হাওয়া। মৌসুমি বায়ু কম সক্রিয় থাকায় ও উত্তরীয় বায়ুর কিছুটা প্রভাব থাকায় শেষ রাতে শীত নেমে এলে ঠাণ্ডা অনুভূত হয়। বিশেষ করে মৌসুমি বায়ু যখন বাংলাদেশের ওপর আর সক্রিয় থাকবে না তখন হালকা ধরনের শীত পড়বে। এর মাত্রা আর অনুভূতি থাকে ভিন্নতর, এটা মোটামুটি সকলের জানা।

আবহাওয়া অফিস জানান, গত কয়েক দিনের ধরে রাতে ও সকালে কুয়াশা পড়ছে আর সবে মাত্র শীত শুরু, দিন বাড়ার সাথে সাথে বাড়বে শীত। শীতের সাথে তাপমাত্রা কমে আসতে শুরু করবে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও খবর...

পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরি